গল্প অপেক্ষার প্রহর

  • Share this:

শুরুটা হয়েছিলো একটা মেসেন্জার গ্রুপ থেকে । সেখানে গিয়ে নিজের সমন্ধে জানাতে হবে । তারপর তারা একটা পার্টনার খুজে দিবে । অবশ্যই সেটা হবে নিজের বিপরীত লিঙ্গের কেউ । যার শুধু নামটাই জানা যাবে ।অনেক টা অজানা ভাবেই কথা বলা । এর চেয়ে বেশি কিছুই জানা যাবে না । বলা যায়, অচেনা মানুষের ক্ষনিকের প্রাপ্তী ।

তখন আমি ইন্টার দ্বিতীয় বর্ষে পরি । এক ভাইয়ের মাধ্যমে গ্রুপে যোগ হয় । তারপরে তারা আমার জন্য একটা পার্টনার খুজতে থাকে । কিছু সময় পর আমার জন্য পার্টনারও পেয়ে যায় । তখনও আমি বুঝতে পারিনি আমি কী করতে যাচ্ছি । হাই হ্যালো থেকে কথা বলা শুরু হলো । তারপর কি করি কোথায় থাকি টুকটাক কথা বলি ।মেয়েটার নাম ছিলো সাদিয়া । সেটা ছিল তার ফেইক নাম । আমার পুরো নামটা শোনার পর, মেয়েটিকে তার নাম জিজ্ঞাসা করতেই বলে, ওইটা আমার ফেইক নাম । আমার ভালো নামটা না হয় অজানাই থাকুক । কথাটা আমার কাছে বেশ ভালোই লেগেছিল । সে দিন কিছু সময় কথা বলার পর দুজনেই বিদায় নেই অনলাইন থেকে ।

এরপর, দুদিন কোনো কথা হয়নি আমাদের মাঝে । বিকেল বেলা হাতে এক কাপ চা নিয়ে অনলাইনে আসলাম ।স্বন্ধ্যা বেলায় অনলাইনে এসে দেখি কোনো মেসেজ আসেনি । ফেসবুকে নিউজফিড দেখতে লাগলাম । তখন একটা মেসেজের শব্দ পেলাম , দেখি মেয়েটি মেসেজ করেছে, কেমন আছেন?

মেয়েটার মেসেজ দেখে মুখে এক চিলতে হাসি পেল । রিপ্ল্যাই দিলাম,

-এই তো চলছে নিজের মতো করে, বলতে গেলে ভালোই আছি। তা আপনি কেমন আছেন?

-যার জন্য ভালো থাকাটা সেই তো নেই । ভালো থেকেই বা কি হবে ।

-সেই মানুষ টা কি এখন আপনার থেকে অনেক দুরে?

-বলতে গেলে আমার কাছ থেকে হাড়িয়েই গেছে । তবে আমার নিজের মাঝে তাকে রেখে দিছি । তার সম্পুর্ন অস্তিত্বটা খুজে পায় নিজের মাঝে ।

-আপনি খুবই কঠিন কথা বলে ফেলেছেন । জীবনটা এরকমি বা কেনো? খুব কম লোকেই তার প্রিয় মানুষকে কাছে পায় । তবে আমি বলবো আপনি ধৈর্য ধরুন । হয়তো পেয়ে যেতে পারেন জীবনে নতুন করে বেচে থাকার কিছু বিষয়বস্তু ।

-তবে কি জানেন, জীবনটা এই মুহুর্ত বদ্ধ ঘরের মতো মনে হয় । চাইলেও আলো বাতাসের খোজে বের হওয়া যায় না ।

-আপনার জন্য খারাপ লাগছে । আপনি যে আমাকে এত কিছু বলছেন, আমাকে কি বিশ্বস্ত মনে হচ্ছে আপনার?

-তা ঠিক জানি না । তবে আপনার সাথে কথা বলতে, নিজের মাঝে কোনো বাধা মনে হচ্ছে না । ভালোই লাগছে । আপনি কি বিরক্ত হচ্ছেন?

-নাহ । মোটেও বিরক্ত হচ্ছি না । তবে আপনার সাথে নিজের মতো করে কথা বলতে পেরে অনেকটা প্রশান্তিই লাগছে ।

-আচ্ছা তাহলে এবার আসি । আবার অনলাইনে আসলে আপনার সাথে কথা হবে ।

-ঠিক আছে । আর শুনেন, ভালো থাকাটা না হয় নিজের প্রতি ছেড়ে দিয়েন । মন খারাপের তো হাজার টা কারন থাকে । আর মন ভালো রাখার জন্য না হয়, একটা কারন খুজে বের করে নিয়েন ।

-চেষ্টা করব । তবে আজকাল মন খারাপের কারন খুজি না । ভালো থাকতেই তো জীবনে যত যুদ্ধ ।

-তাও বটে । আচ্ছা, আপনি এই গ্রুপে কেনো এসেছেন ?

-কাউ কে ভোলার জন্যই আসা । যার নিঃসঙ্গতা আমাকে কুড়া কুড়ে খাচ্ছে । আপনি কেনো এসেছেন?

-বলতে পারেন, একাকিত্ব থেকে । একাই বেশি থাকি, তাই অনলাইনে আসা । আর গ্রুপে একজনের সঙ্গ পেলে খারাপ হয় না ।

-আপনার আসাটা তাহলে পুর্ন হয়েছে বলা যায়?

-তাও বলতে পারেন । আপনি কি এখন অনলাইন থেকে চলে যাবেন?

-হুম । পরে এক সময় কোনো এক স্বন্ধ্যায় কথা হবে ।

তার একটু পর মেয়েটা অফলাইনে চলে যায় । মেয়েটার শেষ কথাটা তখন বুঝতে পারিনি । বুঝতে পারি কিছুদিন পর । যখন টানা কিছু দিন মেয়েটা অনলাইনে আসেনি।

প্রায় প্রতিদিনই গেছি অনলাইনে মেয়েটার জন্য । নাহ । সেই মেয়েটার কিছু দিন দেখাই পেলাম না । মেয়েটার শেষ কথাটা বার বার মনে পরতে লাগল । পরে এক সময়, কোনো এক স্বন্ধ্যায় কথা হবে । কবে কথা হবে আমার ঠিক জানা নেই ।

"এই দিকে আমি পড়া নিয়ে ব্যস্ত হয়ে গেলাম । কয়েক মাস পর আমার চুড়ান্ত টেষ্ট পরীক্ষা হবে । রাত দিন পড়াশোনা নিয়েই ব্যস্ত হয়ে গেলাম । অনলাইনে যাওয়ার কথা ভুলেই গেছিলাম ।

মাঝরাত্রে আমার একবার ঘুম ভেঙ্গে যায় । ঘুম জড়ানো চোখেই ফেসবুকে যায় । অনলাইনে যেয়ে দেখি গ্রুপে সেই মেয়েটা নেই । ঘুমটা সাথে সাথেই উধাও হয়ে যায় । মনটা খারাপ হয়ে যায় । এইভাবে না গেলেও পারতো । বলে যেতেও পারতো । এইভাবে লুকিয়ে যেতে হবে ? মনটা খারাপ করে এইভাবে কিছুদিন কাটিয়ে দেয় ।

মেয়েটাকে ভুলেই গেছিলাম এই কিছু দিন ।

তবে মেয়েটাকে অতটা গুরুত্ব দেয়নি । কেবল মনে হতো, মেয়েটা একটা ভালো মনের মানুষ ছিল ।

বিকেল বেলা বারান্দায় দাড়িয়ে আছি । হাতে এক কাপ কফি নিয়ে । বৃষ্টি হচ্ছে এই স্বন্ধ্যা বিকেল বেলায় । হালকা বাতাস, সাথে নিঝুম বৃষ্টি ।

কফির ধোয়াই আর এই বৃষ্টি বিলাশি স্বন্ধ্যায় নিমিষেই সময়টা কাটানো যাবে । কফিতে একটা চুমুক দিয়েই, ফেসবুকে ঢুকে পরি । ফেসবুকে ঢুকেই ফোনের স্কিনের দিকে তাকিয়ে থাকি অবাক হয়ে । নিজেকে তখন, কিছু সময়ের জন্য হাড়িয়ে ফেলি । যখন নিজের মাঝে ফিরে এলাম । দেখি সেই মেয়েটা আমাকে ফেসবুকে ফ্রেন্ড রিকুয়েষ্ট দিছে । নিজেকে তখনও বিশ্বাস করতে পারছিলাম না । মনের মাঝে এক অজানা হাসি পেল । মেসেন্জারে যেয়ে দেখি, এক ঘন্টা আগে মেয়েটা অনলাইনে ছিল । মেয়েটির আইডির নামটা ছিলো, কল্পনাই তুমি । আমার কাছে এই নামটা কেমন জানি লাগত । কেবল মনে হতো, হয়ত মেয়েটা অজানা কাউকে মনের মাঝে সহযত্নে রেখে দিছে । যাকে না দেখেই তার সমস্ত কল্পনাতে স্থান দিছে । মেয়েটিকে একদিন জিজ্ঞেস করব, এই নামটা রাখার রহস্যটা কি? নিজের নাম দিয়েও তো রাখতে পারত ?

তারপর থেকে মেয়েটার সাথে প্রায় প্রতিদিনই টুকটাক কথা বলতাম । মেয়েটি প্রায় রাতের শেষের দিকে মেসেজ করত । তখন, আমার চোখে রাজ্যের সমস্ত ঘুম এসে ভির জমাতো । মেয়েটা মেসেজ করলে, আমি মেসেজের শব্দ পেয়ে চমকে উঠতাম । আর ভাবতাম, একটা মেয়ে কেনো এতো রাত পর্যন্ত জেগে থাকতে হবে ? নয়ত কেনো শেষ রাতে ফেসবুকে এসে অপরিচিত কাউকে মেসেজ করতে হবে ?

ঘুম কম হলে মেয়েদের চেহারায় এক ধরনের ছাপ এসে যায় । এই মেয়ে কী কখনো নিজেকে আয়নায় দেখে?

ঘুম জড়ানো চোখে মেয়েটার মেসেজ, বিরক্ত নিয়েই সিন করি ।

মেসেজটা হতো দুই শব্দের, জেগে আছেন?

আমি রিপ্ল্যাই দেই, " শেষ রাতে ঘুমাতে যায়, এমন কোনো পাখির নাম আপনার জানা আছে ? মেসেজটি সিন হয়, কিন্তু কোনো উত্তর আসেনা । হয়ত মেয়েটি জানেনা, শেষ রাতে কোন পাখি ঘুমাতে যায় ।

এই শহরে অসংখ্যা পাখি আছে । সারা রাত জেগে থাকতে থাকতে শেষ রাতের দিকে অনিচ্ছাসত্ত্বে এক সময় চোখে ঘুম নেমে আসে ।

ছোট বেলায় মধ্যরাতে ঘুম ভাঙলে একটা পাখির ডাক শুনতে পেতাম । আমাদের আঞ্চলিক ভাষায় সেই পাখিটির নাম জমকুলি । এই পাখি মধ্যরাতে থেমে থেমে ডাকে । প্রতিটি ডাক যেনো আমার বুকের মধ্যে আঘাত করতো । আমি ভয়ে কেপে কেপে উঠতাম । আমার মনে হয়, গবেষণা করে যদি এই পাখির কোনো নাম দেওয়া যেতো । তবে এই পাখিটির নাম দিতাম অভিশপ্ত পাখি ।

এই শহরে অসংখ্যা রাতজাগা পাখিদের মত এই পাখিরও কোনো অভিশপ্ত গল্প আছে । তাই হয়তো রাত জেগে কান্না করে ।

ক্ষনিক পর মেয়েটার মেসেজ আসে ।

"শেষ রাতে কোন পাখি ঘুমাতে যায় জানিনা । কিন্তু পৃথিবীতে কিছু মানুষ আছে, যাদের রাতের শেষ দিকে বলে কিছু নেই । আমি তাদের একজন ।

মেয়েটির মেসেজ পরে চুপ করে থাকলাম । কেবল মনে হত, মেয়েটা তার জীবন নিয়ে প্রচণ্ড হতাশ । মেয়েটা অদ্ভুত অদ্ভুত প্রশ্ন করত । সেই সব প্রশ্নের উত্তর যে আমার জানা নেই । কিভাবে দিব সেই সব প্রশ্নের উত্তর গুলা? নিজেকে কেমন জানি অপরাধী মনে হতে থাকে ।

মেয়েটা রাতজাগা পাখি হয়ে, যে সব প্রশ্ন গুলার উত্তর জানতে চাইতো, সেই সব প্রশ্ন আমাকেই করত । আমি তার প্রশ্ন গুলা ভাবতে ভাবতেই ঘুমিয়ে যেতাম । তারপরের দিন, অনলাইনে গেলে মেয়েটার দুটো মেসেজ দেখতে পেতাম, ঘুমিয়ে গেছেন ? আমার প্রশ্নের উত্তর না দিয়ে ?

আমি শুধু ভাবতাম, আমাকেই কেনো এতো প্রশ্ন করে? আমার বিশ্বাস, এই মেয়ে যদি, কখনো আমাকে সামনে থেকে দেখত, তবে দেখেও না দেখার মত করে চলে যেত । কারণ আমরা ভার্চুয়াল জগতে যতটা পরিপাটি

বাস্তব

জীবনে কখনো ততটা নই । হয়ত নিজে নিজে অনূতপ্ত হত ।

মেয়েটি একদিন আমাকে প্রশ্ন করল

'একজন মানুষকে কতটা ভালোবাসলে বুঝানো যায়, তাকে ছাড়া জীবন মুল্যহীন?

আমি উত্তর না দিয়ে চুপ করে ছিলাম । যার কাছে আপনার কোনো মুল্য নেই, তার কাছে অযথা ভালোবাসার মুল্য দেখানো শুধুই বোকামি । আপনার মুল্য বুঝেনা সে আপনার ভালোবাসার মুল্য বুঝবে কিভাবে?

" মেয়েটার সাথে আমার একটা ভালো সম্পর্ক হয়ে ওঠে । দিন যত যেতে থাকে মেয়েটার সাথে ততই কথা বাড়তে থাকে । অনেক কথা বলতো মেয়েটা । আমিও বলতাম মেয়েটার সাথে । এতোটা কথা কারও সাথে বলতাম না । যত কথা বলতাম এই মেয়েটার সাথে ।

এমনি একদিন মাঝরাতে হঠাৎ বৃষ্টি । সাথে খোলা জানালার সামনে মৃদু বৃষ্টির ঝাপটা, আমায় মেয়েটাকে নিয়ে ভাবতে বাধ্য করল । ভাবতে বাধ্য করলো যে, এই মেয়েটার সাথে আমি যতটা মুক্ত, অন্য কারও সাথে ততোটা মুক্ত নই ।

মেয়েটিকে মেসেজ দিলাম

-আপনাকে না দেখেই যদি, কেউ আপনার একাকিত্বকে অনুভব করতে পারে, সেটাকে কি বলা যায় বলুন তো?

'ওপাশ থেকে উত্তর এলো

-সেটাকে নিছক আবেগ বলেই কাটিয়ে দেবো । বলবো, মরিচিকা চোখেই ধোকা দিতে পারে, অনুভবে নয় । আর কেউ যদি এটাকে নিজের করে নিয়ে আপনাকে স্বাধিনতা দেয়, তবে? তবে আমার জন্য সেটা হবে অনেক বড় একটা আশা । সেটা কোনো মানুষ তার স্বপ্নে ভেবে থাকে । আমার ক্ষেত্রেও তাই ।

-প্রতিটি কথার মাঝে, লুকানো কিছু দীর্ঘশ্বাস, আমার অনুভবে প্রতিফলিত হচ্ছে । আপনার মন খারাপের কারণটা কী জানা যাবে?

-আমি অতীতে ফিরে তাকাতে চাই না । কিন্তু অতীত বারবার আমাকে ফিরে তাকাতে বাধ্য করে । আজ আমি আমার অতীতের একটা পুরো স্বপ্ন কে নিজ হাতে হত্যা করেছি । তাই ভাবছি বর্তমানে যে অতীতটা তৈরি করছি সেটা কি ঠিক?

-বর্তমানে যা করছেন তা অনেক টা বুঝে শুনেই করছেন । তবে কেনোই বা অযথা চিন্তা করছেন? অতীত থেকে শিক্ষা নিন । হয়তো ভবিষ্যতে গিয়ে পিছনে একটা ভালো অতীত দেখবেন ।

-আপনি আমার খারাপ সময়ে অনেক ভালো বন্ধু হয়ে পাশে ছিলেন । আপনাকে তাই একটা কথা বলি । জীবনে কখনও কাউকে ভালোবাসবেন না । কষ্ট পেতে পেতে মরেও যেতে পারেন ।

-আপনার এই ধারনাটি অনেকটা ভুল । জীবনে ভালোবাসতে মানা নেই । তবে আমাদের হারানোর ভয়টা বেশি, তাই আজকাল বলি প্রেমে পরা বারন । তবে আমি বারবার প্রেমে পড়তে চাই ।

-কেনো? কষ্ট পেতে কি খুব ভালোবাসেন নাকি?

-ভালোবাসার কষ্ট নেই, তবে আছে সুপ্ত অনুভুতি, হতে পারে এটা নিজস্ব অথবা দুজনের মধ্যে । কিন্তু ভালোবাসলে কারও তো ক্ষতি দেখছিনা ।

-আর কেউ যখন ধোকা দিয়ে চলে যায়, তখন সেটাকে কি বলবেন?

-তখন আমি বলবো সে অভাগা । প্রকৃতি ভালোভাসা পেয়েও সে এটার মর্ম বোঝেনি । তার চেয়ে অভাগা আর কেইবা হতে পারে । তাই বলে আমি ভালোবাসাকে খারাপ বলবো না । এটা খাটি এবং ভালোবাসাটা মুল্যবান সম্পদ ।

'অনেক্ষণ পর রিপ্ল্যাই আসলো ।

-এই কথাটা কি আপনার আগে বলা উচিৎ ছিলো না ? আপনি জানেন, এই একটি কথার অভাবে আমি কত রাত দিন ছটফট করেছি নিজেকে নিয়ে । সবগুলোই এখন কেবল নিজের বোকামি মনে হচ্ছে । যান আপনার সাথে আর কোনো কথা নেই ।

আমি কয়েকটা হাসির ইমোজি দিয়ে অনলাইন থেকে চলে আসলাম । মাঝরাত্রে বৃষ্টি থেমে থেমে হচ্ছে । মেয়েটা কী জানে না? তার প্রতি আমার বেড়েই চলেছে অনুভুতি । তাকে নিয়ে যে বারবার ভাবতে বাধ্য করতেছে । মেয়েটা দুদিন কোনো মেসেজ করেনি । হয়ত কোনো কারণে রেগে আছে । আচ্ছা সে দিন কী রাগ করার মতো কোনো কিছু বলেছি? নাকি অভিমান করে আছে? সর্বনাশ ! তাও আমার ওপর?

তারপরের দিন, মাঝরাত্রে ঘুম ভেঙ্গে যায় । অনলাইনে যেয়ে দেখি মেয়েটা এখনও জেগে আছে । মেয়েটাকে মেসেজ দিলাম,

-আপনি কী এখনও রেগে আছেন?

ওপাশ থেকে উত্তর এলো

-আপনার কেনো এমনটা মনে হচ্ছে, আমি রেগে আছি?

-রেগে না থাকলে শেষ রাত পর্যন্ত জেগে থাকতেন নাহ । নিশ্চয় কারও ওপর রেগে আছেন?

-রাগ নাহ, তবে অভিমান করে বসে আছি । আর আপনার ওপরই অভিমান করে আছি ।

-অভিমান কিন্তু সবার ওপর করা যায় না । তবে কি আমি স্পেশাল কেউ?

-হলে সমস্যা কি? আপনি তো এখনও কারও বাম পাজরের হার হয়ে যান নি ?

-তা অবশ্যই হয়নি তবে কেমন জানি লাগছে । আচ্ছা আপনার নাম তো এখনও জানি না । আপনার জন্য একটা নাম ঠিক করেছি ।

-তা জনাব দেখি কি নাম ঠিক করেছেন ।

মেসেন্জারে নিক নামটা সেট করে দিলাম রাতজাগা পরি ।

মেয়েটা নামটা দেখে বলল

-হিহিহিহি, বাহ আপনি তো অনেক সুন্দর নাম দিতে পারেন বটে ।

-আপনার কি পছন্দ হয়নি?

-আপনি নাম টা দিছেন পছন্দ না হয়ে কি পারে ।

-আমি কি সত্যি স্পেশাল কেউ?

-হুম অনেকটা ।

-আচ্ছা আমি যে এই রহস্যের প্রেমে হাবুডুবে খাচ্ছি, যদি ডুবে মরে যায় তাহলে কি হবে?

-তাহলে এই প্রথম কোনো রহস্যের বেড়াজালে কোনো জিবিত লাশের দাফন হবে ।

-আর যদি বলি এই রহস্যময়ীর প্রেমে আমি মরতে চাই । অসীমে তাকিয়ে কল্পনায় হাত বাড়িয়ে যদি বলি, একাকিত্বের সঙ্গি হবে কি আমার রাতজাগা পরি ?

-তখন আমি বলবো এই নামের কাউকে চিনিনা । তবে এটা শুধুই একটা ভুলের গুচ্ছ । শুধু শুধুই অনুভুতি গুলা ভোতা হচ্ছে ।

-তবে আমি বলবো, ভুল থেকেই হোক না শুরু । কেইবা জানবে তুমি আমি আর উনি ছাড়া ।

-আল্লাহ, তখন তো ভুলে ভুলেই জীবন পেরিয়ে যাবে ।

-আর কি বা চাই আমরা । ভুলে ভুলেই যদি জীবন পেরিয়ে যায় তাহলে আর কিছু চাইনা এই জীবনে । ভুল থেকে হলেও প্রতিটা মুহুর্ত জানান দিবো তোমায় ভালোবাসি প্রিয় ।

-বাব্বাহ, জনাব দেখি আজ অনেক রোমান্টি মুডে আছে ।

-খুব বেশিই বলে ফেললাম কী?

-হুম । অনেক পাজি হয়ে গেছেন আজ আপনি ।

-কারও মুখের হাসিটা দেখতে একটু তো পাজি হওয়াই যায় তাই না ।

-কিন্তু আপনি তো আমার হাসিমুখ দেখেননি কখনো ।

-যাক আপনি তাহলে বুঝতে পারছেন যে, কথাগুলো আপনার উদ্দ্যেশ্যেই বলা ।

-আপনি খুব চালাক জানেন? কিভাবে আমার থেকেই বের করলেন কথাটা ।

মেয়েটা অফলাইনে চলে যায় । একটু পর ফজরের আযান শুনতে পেলাম । মেয়েটার সাথে, কথা বলতে বলতে কিভাবে যে, সময় টা পার হয়ে গেল, একটুও বুঝতে পারলাম না । কেবল মনে হত, এই মেয়েটাকে অনেক ভালোবেসে ফেলেছি । তাকে ছাড়া আমাকে অসম্পুর্ন লাগে । খুব বেশিই ভালোবেসে ফেলেছি । আচ্ছা, এই মেয়েটা কী আমাকে নিয়ে ভাবে ?

তার অনুভুতি গুলা কি আমাকে নিয়েই? আমার সব অনুভুতি গুলা যে এই মেয়েটাকে ঘিরে ।

তারপরের দিন বিকেল বেলা বারান্দাতে দাড়িয়ে আছি । কি মনে করে ফেসবুকে গেলাম । যেয়ে দেখি মেয়েটা অনলাইনে আছে ।

তাকে একটা মেসেজ দিলাম

"তোমার কাছে কিছুই চাওয়ার সাহস নেই আমার । আমি বরং তোমার কাছে নিজেকে দিয়ে দিলাম । তোমার জন্য হয়তো কিছু করতে পারবো না, তবে তোমাকে অনেক ভালোবাসতে পারবো । তোমাকে যখন বলব, ভালোবাসি বালিকা তখন তুমি একটা দীর্ঘশ্বাস ছেড়ে তুমিও বলে দিও ভালোবাসি ।

মেসেজ টা দিয়ে চুপ করে থাকলাম । ফোনের স্কিনের দিকে তাকিয়ে আছি । একটু পর মেয়েটা মেসেজটা সিন করলো । কিন্তু রিপ্ল্যাই দিতে দেরি করছে । হয়তো ভাবছে মেয়েটা ।

'মেয়েটা ওপাশ থেকে উত্তর দেয়

-তবে ভয় হয় । যদি ভালোবাসতে গিয়ে আমি নিজেই হাড়িয়ে গেলাম, অথবা আপনি হাড়িয়ে গেলেন ? তবে কি এই ভালোবাসা টা অসমাপ্তই থেকে যাবে?

-ভালোবাসায় হাড়ানোর ভয়টা নেই । যা আছে সুপ্ত অনুভুতি । এই অনুভুতিটা না হয় দুজনের মধ্যেই থাকুক ।

-আপনি একটা পাগল ।

-আমি শুধু তোমার পাগল হয়েই সারাজীবন থাকবো ।

-থাকবে তো এইভাবে পাশে তুমি সারাজীবন?

-এই দেখেছো আমরা কিন্তু তুমিতে চলে এসেছি ।

-তুমি ছোট ছোট জিনিস লক্ষ করছ অথচ এইটা লক্ষ করোনি আমরা কতটা কাছে চলে এসেছি ।

-তুমি পাশে না থাকলে এই পৃথিবীতে কিছুই ভালো লাগবে না ।

-এতোটা ভালোবাসো আমাকে?

-বড্ড বেশিই ভালোবাসি । আমার ভালোবাসা আর সুপ্ত অনুভুতি গুলা শুধু তোমার জন্যই ।

-পাগল ভালোবাসি ।

মেসেজ টা দেখে, চোখ দুটো বন্ধ করে একটা দীর্ঘশ্বাস ছাড়লাম । তখন অনেক খুশি হয়েছিলাম । এতোটা খুশি কখনও হয়নি । মনে হচ্ছিল বাতাসে উড়তেছি ।

বেশ কিছুদিন মেয়েটা অনলাইনে আসেনি । নাম্বারও ছিলো না । নাম্বার নেওয়া প্রয়োজন মনে হয়নি । আমরা প্রায় সময় অনলাইনে থাকতাম । মেয়েটার জন্য কিছুটা চিন্তা হচ্ছিল ।

এর মাঝে, হঠাৎ মেয়েটা অনলাইনে এসে বলল,

-তুমি কি আমার সাথে দেখা করতে পারবে?

'আমি অনেক টা খুশি হয়ে বললাম

-কবে দেখা করতে হবে?

-ভ্যালেন্টাইন ডে তে দেখা করতে পারবে ?

-হ্যা । কোন যায়গাটাতে দেখা করতে হবে? আমি তোমাকে চিনবো কিভাবে?

-রমনার বটমুলে এই যায়গা'টাতে । আমি নীল শাড়ি পরে আসবো । আর আমি তোমাকে খুজে বের করে নিবো তার মধ্য থেকে । তুমি যথা সময়ে উপস্থিত থাকবে কিন্তু ।

বিকেল চার'টার দিকে থাকবে ।

" মেয়েটার সাথে দেখা হবে তাহলে ভাভতেই,

অনেক খুশিই লাগছে । কেবল মনে হচ্ছে এই কয়েকটা দিন কিভাবে পার করবো ।

"'আজকে ভ্যালেন্টাইন ডে । পৃথিবীময় ভালোবাসাবাসির দিন । বিশেষ দিনটি, সবাই তার প্রিয় মানুষের সাথেই কাটাবে ।

'আমি যথা সময়ে এই রমনার বটমুলে এই যায়গা'টাতে দাড়িয়ে আছি । চারপাশ টা ভালো করে দেখে নিলাম । সবাই তার প্রিয় মানুষের সাথে সময় কাটাতেই ব্যস্ত । আমি মেয়েটার জন্য উপহার হিসাবে একগুচ্ছ লাল গোলাপ আর একটা গল্পের বই নিয়ে এসেছি। ভালোবাসার দিবসে, এর চেয়ে ভালো উপহার কিবা হতে পারে আমার জানা নেই ।

"তুমিই তাহসান?

পাশ তাকিয়ে দেখি একটা মেয়ে দাড়িয়ে আছে । ভালো করে দেখে নিলাম মেয়ে'টাকে।

চোখে গোল ফ্রেমের চশমা । গোল গোল চেহারা । নীল সাদা শাড়ি পরে আছে । মনে হচ্ছে, শরতের এক টুকরো আকাশ । মেয়েটা অনেক মায়াবী স্নিগ্ধ । আমি হা করে ওর দিকে তাকিয়ে আছি । আমার এই রকম অবস্থা দেখে, ও মৃদু হেসে চলেছে । ও এতোটা সুন্দর হবে, আমার কল্পনাতে ছিল না । আমি ওকে বললাম,

-তুমিই সাদিয়া ?

ও ফিক করে হেসে দিয়ে বলল

-এইটা তো আমার ফেইক নাম । তোমার এই নামটা মনে আছে?

-তা তোমার নাম টা কি এখন জানা যাবে ?

-নাহ, এখনও না । তুমি পরে এক সময় ঠিক জানতে পারবে আমার নামটা ।

ওর কথা শোনার পর চুপ করে থাকলাম ।

আমি অবাক হচ্ছি যে, এই মেয়েটা কিভাবে চিনলো আমায়? ও ঠিক বের করে নিলো ।

তারপর মেয়েটাকে, একগুচ্ছ লাল গোলাপ আর বইটা এগিয়ে দিয়ে বললাম,

"তোমার জন্য এই এক টুকরো ভালোবাসা"

ও আমার থেকে গোলাপ আর বই টা নিয়ে, মৃদু হেসে দিয়ে বলল,

"যানো, তোমাকে এক পলক সামনে থেকে দেখতে খুব ইচ্ছে করছিল । তোমায় ছুয়ে তোমার স্পর্শটা অনুভব করব বলে ।

ও আমার আঙুল দুটো স্পর্শ করল ।

আমি শিহরিত হয়ে ওর দিকে তাকিয়ে থাকলাম । আমার প্রিয় মানুষটা আমার সামনেই দাড়িয়ে আছে । অথচ, কোনো কথা বলতে পারছিনা । এই মেয়েটাকে কত কোথাই না বলার ছিল । কিছুই বলতে পারছিনা ।

ও আমার সাথে অনেকটা সময় কাটানো পর বলল,

"তাহসান আমাকে এখন যেতে হবে ।

আমি একটু অস্থির হয়ে বললাম, আরেকটু সময় থেকে যাও না । ও এটা শুনে আরেকটু সময় থাকলো । মনে হলো, ও চলে গেলে আমি আর তাকে পাবো না । ও আমার গালে হাতটা রেখে বলল, পাগলটাকে সবচেয়ে বেশি ভালোবাসি । বলেই মাথার চুলগুলা এলেমেলো করে দিয়ে বলল, বিদায় দেবে না আমায়?

আমি মেয়েটাকে বললাম,

"আবার দেখা হবে তো আমাদের ?

ও চুপ করে থাকল চোখ দুটো বন্ধ করে । কাগজে মোড়ানো একটা বক্স,

ও আমার দিকে এগিয়ে দিয়ে বলল ।

এইটা তোমার জন্য ছোট একটা উপহার । বাসায় যেয়ে খুলবে বলে দিলাম । ওর দিকে তাকিয়ে মৃদু হেসে দিলাম ।

ও আমাকে নিয়ে রাস্তায় দাড়িয়ে থাকল কিছু সময়,

এর মাঝে একটা রিক্সা চলে আসে । ও রিক্সাতে উঠতে উঠতে বার বার আমার দিকে তাকাচ্ছিল । আমি স্পষ্ট ওর করুন চোখের পানি দেখতে পেলাম । আশ্চর্য ও কান্না করছে কেনো? আমার কেবল মনে হচ্ছে, এইটাই কি আমাদের শেষ দেখা ?

ও আমার দিকে তাকিয়ে থেকে চলে গেল চোখের আড়াল হয়ে ।

"""

রাত্রি বেলা আমি বুকের উপর ফোন রেখে গান শুনছিলাম । চোখে কিছুটা ঘুম ছিলো, তখন হঠাৎ মেয়েটি মেসেজ করে ।

-তুমি কি জেগে আছো?

-হ্যা বলো তুমি?

-আমি একটা সুইসাইট নোট লিখেছি ।

মেয়েটির কথা শুনে মুহুর্তে আমার চোখ থেকে ঘুম উধাও হয়ে যায় । আমি দ্রুত গান বন্ধ করে দিয়ে বলি,

-কি পাগল হয়ে গেছো নাকি ? কার জন্য সুইসাইড নোড লিখেছো?

-মানুষ সুইসাইড করার আগে, অন্য কারর জন্য সুইসাইড নোড লেখে?

-মানে কি বলছো?

-আমি আমার সুইসাইড নোড লিখেছি । তবে বিশ্বাস কর, আমার মৃত্যুর পর কেউ কখনো এই সুইসাইড নোড পাবে না । লেখার কোনো প্রয়োজন ছিলো না । শুধু তোমাকে দেখাবো বলে লিখেছি । তবে প্রমিজ কর? এই সুইসাইড নোড দেখার পর ডিলেট করে দিবা ?

তিনশ সাড়ে তিনশ শব্দের সুইসাইড নোড আমায় পাঠায় । শেষ দু লাইনে লেখা ছিলো

"কারও উপর, আমার কোনো অভিযোগ নেই । ভুল মানুষকে না চেনাই ছিল, আমার জীবনে বড় ব্যর্থতা । আমার এই অভিশপ্ত জীবনে, নতুন করে তোমাকে জড়ালাম না । পারলে ক্ষমা করে দিও ।

"সুইসাইডের মতো যঘন্য ভুল পথ থেকে ফিরে এসো । তোমার জন্য অপেক্ষা করছে একটা সুন্দর পৃথিবী ।

'মেসেজটি সেন্ড করতে গিয়ে দেখি মেয়েটি আমাকে ব্লক করেছে, নয়ত আইডি টা ডিএকটিভ করে দিছে । কয়েকবার ট্রাই করেও মেয়েটির কাছে পৌঁছাতে পারেনি । বার বার মনে হচ্ছিল, কিছু একটা করার দরকার ছিল ।

মেয়েটির দেওয়া উপহার টি কাছেই ছিলো । তরিঘড়ি করে বক্সটি খুলে দেখি, একটা ঘড়ি আর একটা কাগজ ভাজ করা চিরকুট ।

চিরকুট টা খুলতে তাতে লেখা ।

"ভালোবাসা জিনিষ টা কি? আমি কখনোই জানতাম না । আমি কারও ভালোবাসা কখনো পায়নি তো । ছোটবেলায় মাকে হারিয়েছি, তার ভালোবাসা কখনো পায়নি । মায়ের শূন্যতা আমাকে অনেক কাদিয়েছে । বাবাও পর হয়ে গেল, আরেক টা বিয়ে করে । তার থেকে বাবার আদর ভালোবাসা না পেয়েই বড় হয়েছি । খুব বলতে ইচ্ছে করতো, বাবা আমি একটুও ভালো নেই । বাবা আমার কথা কখনো শুনতোই না । সৎ মা আমাকে একটুও দেখতে পারতো না । ধিরে ধিরে তাদের কষ্ট আর অবহেলায় বড় হতে থাকি । মনের মাঝে কষ্ট গুলা পুষে রাখতাম । একাকিত্বকে সঙ্গি করে নিয়ে চলতে থাকলাম । এই সময়ের মাঝে, আমার জীবনে একটা ছেলে আসে । আমাকে প্রচুর ভালোবাসতো । তার ভালোবাসায় আমার সব কষ্ট আর্তনাত গুলো ভুলিয়ে দিতো ।

কষ্টের মাঝে নিজেকে তখন সুখি মনে হতো । কিন্তু, সময়ের সাথে সবকিছু বদলে যায় । এক সময়, সেই ছেলেটাও বদলে যায় । অন্ধকারের রাস্তার মাঝে, আমাকে একা রেখে স্বর্থপরের মতো চলে যায় । পিছনে একটি বারও ফিরে তাকায়নি । প্রতি মুহুর্ত মনে হত নিজেকে শেষ করে ফেলি । আমি মরে গেলেই সব কিছুর অবসান ঘটবে । কুলশূন্য নদীর বুকে বৈঠাহীন নৌকো নিয়ে কোনো দিশা খুজে পাচ্ছিলাম না । একাকিত্ব আমাকে ঘ্রাস করে ফেলেছিল । সব কিছু অসহ্য লাগতো । নিজের ছায়াটাকেও দেখতে পারতাম না । সব সময় অন্ধকার ঘরে একাই থাকতাম ।

এই সব কিছুর মধ্যে তুমি এসে আমায় বাচতে শেখালে ।

"তুমি আসাতে আমার বাচতে খুব ইচ্ছে করছিল । সেই আমি তোমার জীবন থেকে হারিয়ে যাচ্ছি

। কি নির্মম ভাগ্য আমার, আগামি কাল আমার বিয়ে । আমার বিয়ে করার একটুও ইচ্ছে নেই । তোমাকে ছাড়া জীবনটা মুল্যহীন মনে হচ্ছে । তোমাকে না পেলে কিভাবে বেচে থাকবো অন্যকে নিয়ে । তোমার সাথে একটু নিজের মতো করে বাচতে খুব ইচ্ছে করছিলো । নিয়তি তা কখনোই হতে দিবে না । আমার এই অভিশপ্ত জীবনে তোমাকে আর জড়ালাম না । পারলে ক্ষমা করে দিও । না ফেরার দেশে চলে যাচ্ছি । আমার পাগলটাকে সত্যি অনেক ভালোবাসি । আমাকে মনে করে, মন খারাপ করো না ।

আমাকে ক্ষমা করে দিও তুমি ।

তোমার রাতজাগা পরি নিলিশা ।

"আমার চোখ দুটো দিয়ে অঝর ধারায় পানি পরতে থাকে । এই সামান্য সময়ের মাঝে দমকা হাওয়া ঝড় বয়ে গেল আমার এপর দিয়ে । নিজেকে কিছুতেই বুঝাতে পারছিলাম না, এমন টা কেনো হলো ? সারারাত ঘুমাতে পারিনি ।

নিজেকে নিকোটিনের ধোয়াতে পুড়িয়ে ফেলে ।

"শেষ রাত পর্যন্ত মেয়েটির মেসেজের অপেক্ষায় থাকি । রাত জেগে থাকা মানুষগুলো হয়তো খুব বেশি সুখে রাত জাগে না । হয়তো আমিই তার প্রকষ্ট উদাহরন । এ সকল মানুষদের দেখে হয়তো সৃষ্টি কর্তা বাকাভাবে হাসে আরেকবার, এদের সুখ নেই দেখে । শেষ রাতে মেসেজের শব্দ শুনে চমকে উঠি । এই বুঝি মেয়েটি মেসেজ করেছে,

এখনো জেগে আছেন?

"""সমাপ্ত"""

লেখা=তাহসান আহমেদ

Tags:

About author
আমি গল্প এবং বই প্রেমিক একজন মানুষ। গল্প এবং বই পড়তে খুবই ভালোবাসি। যেখানেই যে গল্প অথবা কাহিনী খুজে পাই সেগুলো সংগ্রহ করি এবং আপনাদের সাথে শেয়ার করার চেষ্টা করি। আমি নিজেও কয়েকটি গল্প লিখেছি তবে সেগুলোর সংখ্যাটা খুবই সামান্য।